E-Commerce

সাধারন অর্থে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে গ্রাহক বা ক্রেতার নিকট পন্য পৌছানোর/বিক্রয়ের প্রকৃয়াকে ই-কমার্স বলা হয়।

 

এর সাথে জড়িত বেশ কয়েকটি বিভাগ

(ক) কম্পিউটার

(খ) ইন্টারনেট

(গ) ওয়েব সাইট

(ঘ) স্যোশাল মিডিয়া

(ঙ) পন্যগ্রাফি

(চ) কন্টেন্ট

(ছ) প্রচারনা

সহ আরও অনেক বিষয় জড়িত ই-কমার্স খাতে। সুতরাং এই কয়টি বিভাগকে লক্ষ করলে দেখা যাবে পূর্বে যে প্রযুক্তির ভিত্তি স্থাপন হয়েছে এখন সে প্রযুক্তি ব্যবহার করে নানা বিধ কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে যেভাবে ই-কমার্সের প্রসার ঘটছে তাতে করে বেশ কিছু খাতে কর্মসংস্থান তৈরি হয়েগেছে। ভবিষ্যতে আরও নতুন কর্মসংস্থান তৈরি হবার সমুহ সম্ভাবনা রয়েছে। যেহেতু বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ এবং জনবহুল দেশ সেহেতু এখাতে সরকারী বেসরকারী সহযোগীতা বাড়লে অদুর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের উৎপাদিত পন্য সমগ্র বিশ্বব্যাপি উপস্থাপন সহ দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে।